/উপাচার্যের দায়িত্ব নিলেন আখতারুজ্জামান

উপাচার্যের দায়িত্ব নিলেন আখতারুজ্জামান

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান।

আজ বুধবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে উপাচার্যের কার্যালয়ে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো. এনামউজ্জামানের কাছ থেকে আখতারুজ্জামান তাঁর দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানায়, আজ সকালে উপাচার্যের কার্যালয়ে আসেন আখতারুজ্জামান। পরে উপাচার্য পদে যোগদানের কাগজে সই করেন। তার আগে উপাচার্যের কার্যালয়ে উপস্থিত শিক্ষক-কর্মকর্তাদের আখতারুজ্জামান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের রীতি অনুযায়ী, বিদায়ী ও নতুন নিয়োগ পাওয়া উপাচার্যের উপস্থিতিতে দায়িত্ব হস্তান্তর হয়ে থাকে। বিদায়ী উপাচার্যের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছিল। কিন্তু সময় সমন্বয় হয়নি। তা ছাড়া নিয়োগের প্রজ্ঞাপনে অবিলম্বে আদেশ কার্যকর করতে বলা হয়েছে।

গত সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে সাময়িকভাবে বর্তমান সহ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামানকে নিয়োগ দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য মো. আবদুল হামিদ। অবিলম্বে এই আদেশ কার্যকর করতে হবে।

মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, রাষ্ট্রপতি ১৯৭৩ সালের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আদেশের ১১ (২) ধারা অনুযায়ী এই নিয়োগ দিয়েছেন। উল্লেখ্য, ওই ধারায় বলা হয়েছে, যদি ছুটি, অসুস্থতা, পদত্যাগ বা অন্য কোনো কারণে উপাচার্যের পদ শূন্য হয়, তবে আচার্য তা পূরণ করবেন।

গত ২৪ আগস্ট উপাচার্য হিসেবে অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের স্বাভাবিক মেয়াদ শেষ হয়। সিনেটের বিশেষ অধিবেশনে উপাচার্য প্যানেল নির্বাচনের মাধ্যমে ২০১৩ সালের ২৪ আগস্ট তিনি চার বছরের জন্য নিয়োগ পেয়েছিলেন। তার আগে ২০০৯ সালে রাষ্ট্রপতি তাঁকে সম্পূর্ণ অস্থায়ী হিসেবে নিয়োগ দিলেও তিনি নির্বাচন ছাড়াই সাড়ে চার বছর দায়িত্ব পালন করেন।

গত ১৬ জুলাই এক চিঠিতে সিনেট সদস্যদের জানানো হয়, ২৯ জুলাই সিনেটের বিশেষ অধিবেশনের মাধ্যমে উপাচার্য প্যানেল নির্বাচন হবে। এই চিঠির বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২৪ জুলাই ১৫ জন শিক্ষক ও রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন। হাইকোর্ট ওই চিঠির কার্যকারিতা স্থগিত করেন। পরে চেম্বার আদালতের স্থগিতাদেশ নিয়ে ২৯ জুলাই উপাচার্য প্যানেল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সিনেটের এই বিশেষ অধিবেশনে নির্বাচিত উপাচার্য প্যানেলে আবার আরেফিন সিদ্দিকের নাম আসে। তবে অধিবেশনে সিনেটের ১০৫ জন সদস্যের মধ্যে মাত্র ৪৭ জন উপস্থিত ছিলেন। সেখানে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, কোষাধ্যক্ষ মো. কামাল উদ্দীন ও বিজ্ঞান অনুষদের ডিন আবদুল আজিজকে নিয়ে তিন সদস্যের উপাচার্য প্যানেল তৈরি হয়।

পরে ৩ আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নির্বাচনের জন্য মনোনীত তিন সদস্যের প্যানেলের পরবর্তী কার্যক্রম স্থগিত করে রিট আবেদনটি চার সপ্তাহের মধ্যে হাইকোর্টকে নিষ্পত্তির নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ। আদেশে আপিল বিভাগ বলেন, রিট আবেদন নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান উপাচার্য তাঁর দায়িত্ব পালন করে যাবেন।

আগামী ৩ অক্টোবর রিটের পরবর্তী শুনানির তারিখ নির্ধারিত আছে। উপাচার্যের স্বাভাবিক মেয়াদ শেষ হলেও আপিল বিভাগের ওই আদেশবলে ২৪ আগস্টের পর থেকে আরেফিন সিদ্দিক দায়িত্ব পালন করছিলেন।

নতুন উপাচার্য আখতারুজ্জামান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক। একই বিভাগ থেকে তিনি স্নাতক ও স্নাতকোত্তর করে ১৯৯০ সালে প্রভাষক হিসেবে যোগ দেন। আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুলব্রাইট স্কলার ও যুক্তরাজ্যের বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভিজিটিং স্কলার ছিলেন। তিনি মুসলিম ইতিহাসতত্ত্ব, মধ্যযুগীয় বাংলার সমাজ ও নগরায়ণ নামে দুটি বই লিখেছেন। তাঁর ৪২টি গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে।

অধ্যাপক আখতারুজ্জামান ২০০৪, ২০০৫ ও ২০০৬ সালে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

খবরটি সবার সাথে শেয়ার করুন !