/এক মাসের মধ্যে হলি আর্টিজান মামলার অভিযোগপত্র : ডিএমপি কমিশনার

এক মাসের মধ্যে হলি আর্টিজান মামলার অভিযোগপত্র : ডিএমপি কমিশনার

এক মাসের মধ্যে গুলশানের হোলি আর্টিজান মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।
ডিএমপি কমিশনার আজ রাজধানীর মহাখালী বাস টার্মিনালে ঈদ উপলক্ষে আয়োজিত আইনশৃঙ্খলা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।
মহাখালী বাস টার্মিনাল সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ মোঃ আবুল কালাম সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মীর রেজাউল আলম, যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-উত্তর) মোসলেহ উদ্দিন আহমদ, যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক-দক্ষিণ) মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ, ঢাকা জেলা বাস মিনিবাস সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যকরি সভাপতি মোঃ ওসমান আলী ও সাধারণ সম্পাদক আলহাজ সহিদুল্ল্যাহ (সদু) এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘তাড়াহুড়ো করে একটা জিনিসকে নষ্ট করার চেয়ে একটু সময় নিয়ে ঠান্ডা মাথায় অকাট্য যুক্তিসহকারে হোলি আর্টিজান মামলার অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করা হবে। আর সেটা মাস খানেকের মধ্যেই দেয়া হবে।
সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় কমিশনার বলেন, আসন্ন পবিত্র ঈদে ঘরমুখী যাত্রীদের কাছ থেকে নির্ধারিত ভাড়ার অতিরিক্ত ভাড়া নিলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। যাত্রী হয়রানিমূলক কোন আচরণ বরদাস্ত করা হবে না।
তিনি বলেন, ‘আমাদের সমন্বিত নিরাপত্তার জন্য রমজানের এই ২৬ দিনে ঢাকা মহানগরীতে উল্লেখযোগ্য কোন অপরাধ ঘটেনি। ঈদকে সামনে রেখে যে সমস্ত আপরাধ হয়ে থাকে তা আমরা সবাইকে নিয়ে নিয়ন্ত্রণ করেছি। মানুষ নিরাপদে গভীর রাত পর্যন্ত শপিংমলে ঈদের কেনাকাটা করে বাড়ি ফিরছে।’
অজ্ঞানপার্টি, পকেটমার, চাঁদাবাজ ও টিকেট কালোবাজারিদের বরদাস্ত করা হবে না উল্লেখ করে আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, শুধু বাস টার্মিনাল না, আমরা সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল, রেল স্টেশনে নিয়েছি বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এবার রমজানে ঢাকা শহরে কোন ধরনের চাঁদাবাজি হয়নি। যেই চাঁদাবাজি করবে তাকে ছাড় দেয়া হবে না।
তিনি বলেন, টার্মিনাল থেকে গাড়ির কাগজ ও ড্রাইভিং লাইসেন্স পরীক্ষা করে গাড়ি বের করতে দেয়া হবে। টার্মিনালে আমরা হলুদ রেখা দিয়েছি। গাড়ি হলুদ রেখা অতিক্রম করলেই তাকে অবশ্যই টার্মিনাল ছাড়তে হবে। ঢাকা শহরের প্রবেশ ও বাহির পথ যানজটমুক্ত রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। কোন রকম লক্কর-ঝক্কর বাস রাস্তায় নামতে দেয়া হবে না। লক্কর-ঝক্কর বাস রাস্তায় নামলে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে বাস ডাম্পিং করা হবে।
গাড়ি চালকদের উদ্দেশ্যে কমিশনার বলেন, আপনারা নেশাগ্রস্থ হয়ে নিজের সাথে যাত্রীদেরও বিপদে ফেলবেন না। জঙ্গির পর মাদকের বিরুদ্ধে আমরা যুদ্ধ ঘোষণা করেছি। যতদিন ঢাকা মহানগরে মাদক থাকবে ততদিন আমাদের অভিযান চলবে। মাদক ব্যবসায়ীদের চিহ্নিত করে তাদের আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। কাউকে ছাড় দেয়া হচ্ছে না।

খবরটি সবার সাথে শেয়ার করুন !