এটুআই’র কিশোর বাতায়ন ‘কানেক্ট’ এবং প্রতিবন্ধীবান্ধব ‘একসেসিবেল ডিকশনারি’ উদ্বোধন

শিক্ষার্থীদের সৃজনশীলতা, মেধা-বিকাশ ও সুস্থ-বিনোদনের জন্য তৈরি অনলাইন ভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম কিশোর বাতায়ন ‘কানেক্ট’ এবং প্রতিবন্ধীবান্ধব ‘একসেসিবেল ডিকশনারি’ শুভ উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
বৃহস্পতিবার বাংলা একাডেমী প্রাঙ্গনে অমর একুশে বইমেলায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম এর ডিজিটাল তথ্যকেন্দ্র থেকে অনলাইন প্ল্যাটফর্মের উদ্বোধন করা হয়।
কিশোর বাতায়ন ‘কানেক্ট’ কিশোরদের জন্য নির্মিত একটি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম।এই (http://konnect.gov.bd) প্ল্যাটফর্ম থেকে শিক্ষক, শিক্ষার্থী কিংবা আগ্রহী যেকেউ যেকোন স্থান থেকে অনলাইন কোর্সে অংশগ্রহণের মাধ্যমে জ্ঞান ও দক্ষতা অর্জন করতে পারবেন। বাংলাদেশের সকল কিশোর যে কোন প্রান্তে বসে এ কিশোর বাতায়নে একই সাথে বিদ্যমান কনটেন্ট দেখতে পারবে ও নতুন কনটেন্ট যুক্ত করতে পারবে। বাতায়ন থেকে কিশোরেরা বই পড়া ও ডাউনলোড করা; সিনেমা দেখা ও তৈরি করে আপলোড করা; বিজ্ঞান, বাংলাদেশ স্টাডিজ, পদার্থ, রসায়ন ও বায়োলজির নানা বিষয়ভিত্তিক কমিকস পড়া, দৈনন্দিন জীবনের নানা সমস্যাকে বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোণ থেকে বিশ্লেষণ করা ও হাতে কলমে নানা পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে ব্যবহারিক জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। একই সাথে কিশোর বাতায়ন হতে যাচ্ছে ব্যক্তিগত (স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, স্বাস্থ্যসম্মত জীবনযাপন করা, নেতৃত্ব দেয়া, সামাজিকভাবে যোগাযোগ স্থাপন  ইত্যাদি সম্পর্কে জানা) ও সামাজিক (জেন্ডার কনসেপ্ট, পরিবেশ ও জীবন ইত্যাদি সম্পর্কে ধারণা রাখা)  দক্ষতা বিকাশের একটি উৎস। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ ও প্রতিফলন, সাংস্কৃতিক মননশীলতার চর্চা ও ডিজিটাল কনটেন্ট হিসেবে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুমে ব্যবহারের সুযোগও থাকছে।
দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্যে বাংলাদেশ সরকার বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করে চলেছে এবং আধুনিক সহায়ক প্রযুক্তি তৈরি হয়েছে যা ব্যবহার করে প্রতিবন্ধীদের জীবনমান আরও উন্নত হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে এটুআই প্রোগ্রামের সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ডের সহায়তায় জাতীয় শিক্ষাক্রমের ওপর তৈরি করা মাল্টিমিডিয়া টকিং বুক যা ২০১৬ সাল থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের হাতে চলে যাচ্ছে। উদ্ভাবনের এই ধারাবাহিকতায় দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্যে এটুআই প্রোগ্রামের সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ডের সহায়তায় ইপসা নামক বেসরকারি প্রতিষ্ঠান তৈরি করেছে ওয়েবসাইট ও মোবাইল অ্যাপ ভিত্তিক ‘একসেসিবেল ডিকশনারি’ (অভিগম্য অভিধান) (http://accessibility dictionary.gov.bd)  যা ব্যবহার করে বিভিন্ন বয়সের দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা ইংরেজি ও বাংলা শব্দের উচ্চারণসহ অর্থ শুনতে পারবে। এই উদ্ভাবনী প্রযুক্তি ‘একসেসিবেল ডিকশনারি’ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক উদ্বোধন করা হলে তা দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ব্যক্তি, বিশেষ করে শিক্ষার্থীদের জন্যে উপকারী হবে এবং ভাষার ওপর তাদের দখল আরও বহুগুণ বাড়িয়ে দেবে।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রোগ্রামের পলিসি অ্যাডভাইজর আনীর চৌধুরী, জনপ্রেক্ষিত বিশেষজ্ঞ নাইমুজ্জামান মুক্তা, বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের যুগ্ম পরিচালক মেসবাহ উদ্দিন আহমেদ, এটুআই প্রোগ্রামের পলিসি স্পেশালিস্ট মোঃ আফজাল হোসেন সারওয়ার, এটুআই প্রোগ্রামের এইচ ডি মিডিয়া প্রোডাকশন ম্যানেজার পূরবী মতিন, এটুআই প্রোগ্রামের কনসালটেন্ট ভাস্কর ভট্টাচার্য, এটুআই প্রোগ্রামের এডুকেশন টেকনোলজি এক্সপার্ট মোঃ রফিকুল ইসলাম এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ঊর্দ্ধতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, ২০১১ সাল থেকে প্রতি বছর অমর একুশে গ্রন্থমেলায় একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের উদ্যোগের ডিজিটাল তথ্যকেন্দ্র স্থাপন করা হয়। এটুআই, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ শিশু একাডেমী, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবিপ্রবি), বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র ও চিলড্রেন্স ফিল্ম সোসাইটি যৌথভাবে অনলাইন ভিত্তিক প্ল্যাটফর্ম কিশোর বাতায়ন ‘কানেক্ট’ নির্মাণ করেছে। আর এটুআই প্রোগ্রামের সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ডের সহায়তায় ইপসা নামক বেসরকারি প্রতিষ্ঠান দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের জন্যে তৈরি করেছে ওয়েবসাইট ও মোবাইল অ্যাপ ভিত্তিক ‘একসেসিবেল ডিকশনারি’ (অভিগম্য অভিধান)।