জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের ভাগ্য নির্ধারিত হতে যাচ্ছে মঙ্গলবার

উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের ওপর ব্রিটেনের গ্রেফতারি পরোয়ানাটি জারি থাকবে নাকি তা বাতিল করা হবে মঙ্গলবার তা নির্ধারিত হচ্ছে। ওই দিন অ্যাসাঞ্জের ইকুয়েডরের লন্ডন দূতাবাস ত্যাগের পথ সুগম হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
অ্যাসাঞ্জ ইউরোপীয় গ্রেফতারি পরোয়ানা এড়াতে ২০১২ সাল থেকে ইকুয়েডরের দূতাবাসে অবস্থান করছেন। তাকে গ্রেফতার করে সুইডেনের কাছে হস্তান্তর করার কথা ছিল। সুইডেনে ২০১০ সালে তার বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়নের অভিযোগ করা হয়। তদন্তের স্বার্থে সুইডেন সরকার তাকে খুঁজছিল। তবে গত বছর সুইডেন তার তদন্ত বাতিল করে। এদিকে আদালতে আত্মসমর্পণ না করায় ব্রিটিশ পুলিশ অ্যাসাঞ্জকে এখনো গ্রেফতার করতে চাইছে। তাকে বহিষ্কারের ব্যর্থ চেষ্টাকালে জামিনের শর্ত লঙ্ঘন করায় আদালত তাকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেয়।
অ্যাসাঞ্জের আইনজীবীরা তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা তুলে নিতে ব্রিটিশ আদালতের প্রতি আবেদন জানিয়েছে। কিন্তু গত সপ্তাহে একজন বিচারক তার আবেদনকে খারিজ করে দিয়েছে। বিচারক এমা আরবুথনোট লন্ডনের একটি আদালতে বলেন, ‘এই গ্রেফতারি পরোয়ানাটি তুলে নেয়ার ব্যাপারে আমি আশ্বস্ত হতে পারছি না।’
তিনি এভাবে এর ব্যাখ্যা করেন যে ২০১২ সালে অ্যাসাঞ্জ তার জামিনের শর্ত লঙ্ঘন করেছেন। কিন্তু একই সঙ্গে তিনি এও বলেছেন যে মঙ্গলবার অ্যাসাঞ্জের আইনজীবীরা তার কাছে পরোয়ানাটি তুলে নেয়ার জন্য আবার আবেদন করছেন। সেখানে তারা ‘জনস্বার্থে’ তার এই পরোয়ানাটি বহাল রাখা উচিত কিনা তা বিবেচনা করার আবেদন জানাচ্ছে।