/নির্বাচন স্থগিতের দায় নেবে না ইসি

নির্বাচন স্থগিতের দায় নেবে না ইসি

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে কোন ধরণের আইনি জটিলতা নেই-স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে এমন নির্দেশনার পর তফসিল ঘোষণা করেছিল নির্বাচন কমিশন (ইসি)। গত ৩১ মার্চ তফসিল ঘোষণার আগে ইসি থেকে দু’দফা চিঠি দেয়ার পর স্থানীয় সরকার বিভাগ জটিলতা নেই বলে লিখিতভাবে নির্দেশনা দেয়। ফলে উচ্চ আদালতে নির্বাচন স্থগিত হওয়ার বিষয়ে কোনভাবে কমিশন দায়ী নয় বলে মনে করছেন ইসির সংশ্লিষ্টরা।

রবিবার উচ্চ আদালতের নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে গাজীপুর সিটি করপোরেশনে সব ধরনের নির্বাচনী কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে ইসি। ওই নির্দেশনার পর নির্বাচনের কার্যক্রম স্থগিত করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। আদালতের নির্দেশনা পুরোপুরি হাতে পাওয়ার পর ইসি পরবর্তী করণীয় ঠিক করবে। এদিকে গাজীপুর ও খুলনা সিটিতে ভোটের দিন শিল্প কারখানা বন্ধ রাখার বিষয়ে আলোচনা করতে ব্যবসায়ী সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে আজ সোমবার অনুষ্ঠেয় বৈঠক স্থগিত করেছে কমিশন।

গতকাল বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁও নিজ কার্যালয়ে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার সাংবাদিকদের বলেন, টেলিভিশনে তারা দেখেছেন হাইকোর্ট গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন তিন মাসের জন্য স্থগিত করেছে। তবে ইসি এখনো এ আদেশের কোনো কপি পায়নি। যেহেতু ইসি হাইকোর্টের আদেশের বিষয়টি জানতে পেরেছে, তাই নির্বাচনী কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ইসি সূত্র জানায়, গাজীপুরসহ পাঁচ সিটি করপোরেশনের সীমানা, ওয়ার্ড বিভক্তিকরণ, আদালতের আদেশ প্রতিপালন ও প্রাসঙ্গিক অন্যান্য বিষয়ে সর্বশেষ অবস্থাসহ মতামত জানানোর জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগকে গত ৮ মার্চ চিঠি দেয় ইসি। ওই চিঠির জবাব না পেয়ে গত ২০ মার্চ ফের আরেকটি চিঠি দেয় কমিশন। ওই চিঠির জবাবে গত ২৮ মার্চ স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে ইসিকে জানানো হয় গাজীপুর, খুলনা, রাজশাহী, সিলেট ও বরিশাল সিটি করপোরেশনে নির্বাচন করতে কোনো জটিলতা নেই।

গাজীপুর সিটি করপোরেশনে থাকা ছয়টি মৌজা ঢাকার সাভার উপজেলার শিমুলিয়া ইউনিয়নভুক্ত-এমন দাবি জানিয়ে তফসিল ঘোষণার আগে তিনবার হাইকোর্টে রিট করেছিলেন শিমুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবিএম আজহারুল ইসলাম সুরুজ।

খবরটি সবার সাথে শেয়ার করুন !