/মন্ত্রীর আশ্বাসে অনশন ‌ভাঙলেন ইবতেদায়ী শিক্ষকরা

মন্ত্রীর আশ্বাসে অনশন ‌ভাঙলেন ইবতেদায়ী শিক্ষকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক

সরকারের কাছ থেকে আশ্বাস পেয়ে অনশন ভেঙেছেন জাতীয়করণের দাবিতে গত ১ জানুয়ারি থেকে রাজধানীতে আন্দোলন চালিয়ে আসা স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকরা।

মঙ্গলবার দুপুরে শিক্ষামন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাসের পর অনশন ভাঙার সিদ্ধান্ত নেন শিক্ষক নেতারা।

পরে বেলা ২টার দিকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনের অনশনস্থলে এসে শিক্ষাসচিব মো. আলমগীর (কারিগরী ও মাদ্রাসা) দাবি মেনে দেওয়ার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়ে শিক্ষকদের অনশন ভাঙান।

দুপুরে আন্দোলনরত শিক্ষকদের কাছে গিয়ে আলমগীর হোসেন বলেন, আমরা ইতোমধ্যে আপনাদের তথ্য সংগ্রহ করে মন্ত্রী বরাবর পাঠিয়েছি। মন্ত্রী আস্বস্ত করেছেন আপনাদের দাবি মেনে নিয়ে কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়া হবে। তাই আপনারা আন্দোলন প্রত্যাহার করে বাড়ি ফিরে যান এবং পাঠদানে মনযোগী হন।

এরপর শিক্ষকদের পক্ষ থেকে কর্মসূচি স্থগিতের কথা জানান স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির মহাসচিব সভাপতি কাজী রুহুল আমিন চৌধুরী।

তিনি বলেন, সরকারের সাথে আমরা একমত। উনারা যা করার করবেন। আমরা আশা করি দাবি-দাওয়া মেনে নেবেন। এখানেই আমাদের কর্মসূচি স্থগিত করলাম। অনশন ভেঙে আমরা নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চলে যাব।

এরপর শিক্ষাসচিব মো. আলমগীর ও শিক্ষক নেতারা আন্দোলনরত শিক্ষকদের জুস খাইয়ে অনশন ভাঙান।

মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক রেজিস্ট্রেশনপ্রাপ্ত সকল স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার এমপিওভুক্তির দাবিতে গত ১ জানুয়ারি থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন শিক্ষকেরা। এরপর তারা ৮ জানুয়ারি থেকে আমরণ অনশন শুরু করেন। মঙ্গলবার পর্যন্ত ১৮৬ শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়েন।

আন্দোলনরত শিক্ষকরা জানান, একই পরিপত্রে ১৯৯৪ সালে বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষকদের বেতন নির্ধারণ করা হয় ৫০০ টাকা। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মতো স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী পঞ্চম শ্রেণির কার্যক্রম একই হলেও ২০১৩ সালের ৯ জানুয়ারি ২৬ হাজার ১৯৩টি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ করে সরকার।

এসব বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রতি মাসে ২২ থেকে ৩০ হাজার টাকা বেতন হলেও ১ হাজার ৫১৯টি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষকরা সরকারের থেকে কোনো বেতন পান না।

খবরটি সবার সাথে শেয়ার করুন !