/মিস কোড করবেন না, বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়: প্রধান বিচারপতি

মিস কোড করবেন না, বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়: প্রধান বিচারপতি

মামলার শুনানিকালে বিচারক ও আইনজীবীদের মধ্যে কথোপকথন ‘মিস কোড’ না করতে সাংবাদিকদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা।

বৃহস্পতিবার (২৪ আগস্ট) সুপ্রিম কোর্টের শহীদ শফিউর রহমান মিলনায়তনে  ‘জুডিসিয়াল  ইন্টারপ্রিটেশন’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যের তিনি এ কথা বলেন।

প্রধান বিচারপতি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আপনাদের কাছে আমার একটা আবেদন। আমি প্রকৃতপক্ষে কোনো ইয়ো করি না। আপনারা আমাকে অনেক ইয়ো করছেন। কিন্তু একটু মিস কোড করবেন না। আমাকে নিয়ে অনেক বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়। আমি কোর্টে যা বলি কিছু ডিস্ট্রোটেড ইয়ো করা হয়। এতে গিয়ে আমি বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়। এটা যাতে আমাকে না পড়তে হয়।’

তিনি বলেন, ‘ প্রেস কনফারেন্স করে কোনও কিছু বলা সম্ভব না। একজন বিচারক হিসেবে কোনও মামলার শুনানির সময় আইনজীবীকে একটা প্রশ্ন করতে পারি। এটা আমার স্বাধীনতা। প্রশ্নটা কি কারণে কোন উদ্দেশ্যে না বুঝে এটা করাটা এটা অনেক সময় ভূলভ্রান্তি হতে পারে। এটা একটু খেয়াল করবেন।’

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেন, ‘স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা ও জেল হত্যা মামলার অনেক কিছুই তদন্তে উঠে আসেনি, তাই একদিন আমি লিখে সবকিছু প্রকাশ করে যাবো।’

তিনি বলেন, ‘শোকের মাস চলছে। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা পরিচালনা করতে গিয়ে ব্যথিত হয়েছি। বাচ্চা ছেলে রাসেলকেও (শেখ রাসেল) পর্যন্ত হত্যা করা হয়েছে। এটা পশুর থেকেও….।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার তদন্তে ও প্রসিকিউশনে অনেক ত্রুটি ছিলো। বিচারপতি হওয়ায় তা বলতে পারিনি। এ নিয়ে আমি ভবিষ্যতে কিছু লেখার চেষ্টা করছি। জেল হত্যা মামলা ও বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা নিয়ে লিখবো। মামলা দুটিতে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র ছিলো। ক্যান্টনমেন্ট থেকে ষড়যন্ত্র করা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই ষড়যন্ত্রে যারা যারা ছিলো তারা সবাই দায়ী। এরা ওই রাত্রে ষড়যন্ত্র করেছে, মার্স করেছে। আমি লিখে যাবো। দেখিয়ে যাবো কারা কারা ছিলো(ষড়যন্ত্রকারী)। সেনাবাহিনীতে অনেকেই সুযোগ নিয়ে চলে গিয়েছে (দেশের বাইরে)। ওসব লিখে যাবো।’

আইনজীবীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আপনারা গরীব-অসহায় বিচার প্রত্যাশীদের কাছে আইনের ন্যায্য সুবিধা পৌঁছে দেবেন।’

বিচারপতিদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘ছাত্র জীবনে অনেকেই অনেক ধরনের রাজনীতি করেছেন। কিন্তু বিচারপতি হবার পর আপনারা অতীত ভুলে যাবেন। সঠিক বিচারের চেষ্টা করবেন।’

অনুষ্ঠানে ড. কামাল হোসেন, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন, সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনসহ আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন।

খবরটি সবার সাথে শেয়ার করুন !