সেই থেকে চোখের সমস্যা প্রধানমন্ত্রীর

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশে গিয়ে সন্ত্রাসের শিকার হন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা। ঘটনার সময় দলীয় নেতা-কর্মীরা মানববর্ম তৈরি করে তাকে রক্ষা করেন। শেখ হাসিনা তখন প্রাণে বেঁচে গেলেও তাঁর শ্রবণশক্তি স্থায়ীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এটা সবারই জানা। কিন্তু আমরা অনেকেই হয়তো জানি না, বর্বরোচিত ওই হামলার পর থেকে চোখের সমস্যাও বয়ে বেড়াচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।

আওয়ামী লীগের সূত্রগুলো বলছে, ২১ আগস্টের পর শ্রবণজনিত সমস্যার সাথে সাথে চোখের সমস্যাও শুরু হয় প্রধানমন্ত্রীর। কিন্তু তিনি কখনই এসব নিয়ে মাথা ঘামাননি। নিজের অসুস্থততা, নিজের অসুখ-বিসুখ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবরই অমনোযোগী। এমনকি সেই হামলার দিনও শেখ হাসিনা যখন বুঝতে পারেন যে নিজের কানে আঘাত পেয়েছেন, তখনো তিনি চিকিৎসকদের অনুরোধ করছিলেন আহত নেতাকর্মীরা যেন আগে চিকিৎসা পান।

চোখ ও কানের কারণে আওয়ামী লীগ সভাপতিকে মাঝে মাঝেই চেকআপ করতে হয়। দেশে থাকতে যেমন নিয়মিত চিকিৎসকদের কাছে চেকআপ করান তিনি, তেমনি দেশের বাইরে গেলেও চিকিৎসকদের পরামর্শ নিতে হয় তাকে। সেই ক্ষত নিয়েই বেঁচে আছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গ্রেনেডের বিকট শব্দে ক্ষতিগ্রস্ত একটি কানে এখনো বঙ্গবন্ধু কন্যাকে কখনো কখনো ব্যবহার করতে হয় ‘হিয়ারিং এইড’।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান জানান, ২১ আগস্ট হামলার ফলে একটি কানের শ্রবণশক্তি হারিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। শুধু তাই নয়, ওই হামলার কারণেই তার চোখেও সমস্যা হয়েছিল। দীর্ঘ চিকিৎসায় তার চোখের অবস্থা কিছুটা ভালো। তবে এখনো তিনি আঘাতপ্রাপ্ত কানের শ্রবণশক্তি পুরোপুরি ফিরে পাননি। কিন্তু এসব বিষয়ে প্রধানমস্ত্রীর খেয়াল সামান্যই। নৃশংস সেই হামলায় আহত নেতা-কর্মীদের নিয়েই বেশি চিন্তিত তিনি। এখনও তিনি আহতদের খোঁজ খবর নেন নিয়মিতভাবে। তাদের চিকিৎসা হচ্ছে কিনা, তারা চিকিৎসকের পরামর্শ মানছেন কিনা তা নিয়েও কড়া নির্দেশনা দেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap