উপকূলের বাসিন্দাদের আশ্রয় কেন্দ্রে নেয়া হবে কাল

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় আম্ফান ধেয়ে আসায় মঙ্গলবার বিকেল থেকে উপকূলীয় এলাকার মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে নেয়া শুরু হবে। সোমবার (১৮ মে) দুপুরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়র সিনিয়র সচিব মো. শাহ কামাল এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, আবহাওয়া অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী ঘূর্ণিঝড়টি এখন যে গতিতে এগিয়ে আসছে তাতে এটি বুধবার সকাল নাগাদ বাংলাদেশের উপকূল অতিক্রম করতে পারে। তাই আগামীকাল বিকেল থেকে হয়তো উপকূলীয় এলাকার মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে নেয়া শুরু হবে।

তিনি আরও বলেন, রোজার দিন এটা মাথায় রেখেই আমরা লোকজনকে আশ্রয় কেন্দ্রে নেব। আজকে বিপদ সংকেত ঘোষণা দিলে মানুষ প্রস্তুতি নেবে। আজকে রাতে ঘরে থাকবে। আশ্রয় কেন্দ্রে আনার কিছু নিয়ম আছে। আগে প্রতিবন্ধীদের নিয়ে আসা, গর্ভবতী নারীদের নিয়ে আসা, নারী ও শিশুদেরকে নিয়ে আসা। পুরুষ লোক অনেকে হয়তো ইফতার করে রওয়ানা দেবে।

মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে নেয়াসহ সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে জানিয়ে সিনিয়র সচিব বলেন, এবার আবার সামাজিক দূরত্ব মেনে আশ্রয় কেন্দ্রে জায়গা দিতে হবে মানুষকে। এজন্য গাদাগাদি করে যাতে না থাকে এজন্য আমরা স্কুল, কলেজ, মাদরাসাসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো নিয়ে নিয়েছি।

উপকূলীয় এলাকায় আমাদের ৫ হাজার সাইক্লোন শেল্টার রয়েছে। এবার শুধু এই ৫ হাজারের মধ্যেই মানুষ আশ্রয় নেবে না। এ বছর আশ্রয় কেন্দ্র অনেক বেড়ে যাবে। আমরা ইতোমধ্যে প্রত্যেকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রস্তুত করে ফেলেছি। আর আমাদের ৫ হাজার আশ্রয় কেন্দ্রও প্রস্তুত।

এদিকে এই ঘূর্ণিঝড় সরাসরি সরাসরি বাংলাদেশ ভূখণ্ডে আঘাত হানতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। ১৯ মে শেষরাত থেকে বুধবার বিকাল কিংবা সন্ধ্যার মধ্যে বাংলাদেশের উপকূল অতিক্রম করতে পারে ঘূর্ণিঝড়টি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap