নিত্যপণ্যের মজুত ও সরবরাহ ঠিক রাখার নির্দেশ

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ৯ এপ্রিল শবে বরাত এবং ২৪ এপ্রিল থেকে শুরু হচ্ছে রোজা। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ২৫ মে পালিত হবে মুসলিম সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর। এই সময়ে যে কোনও মূল্যে দেশের সর্বত্র সব ধরনের নিত্যপণ্যের সরবরাহ ও মজুত ঠিক রাখার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এক্ষেত্রে দেশের ব্যবসায়ী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, চারটি গোয়েন্দা সংস্থাসহ জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের সমন্বয়ে কাজ করতে বলা হয়েছে বলে জানা গেছে। প্রধানমন্ত্রীর দফতর সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় রাজধানীসহ সারাদেশে সাধারণ ছুটি চলছে। এ সময় বন্ধ রয়েছে সব ধরনের  গণপরিবহন। নিম্ন আয়ের মানুষসহ সব শ্রেণিপেশার মানুষ ঘরে বসে আছেন। অনেকেই কয়েকদিনের খাদ্যসহ নিত্যপণ্য মজুত করেছে। অনেকে মজুত করেননি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, একদিকে পরিবহন সংকট, অপরদিকে শ্রমিক সংকট। এই দুই সংকটে প্রচুর পরিমাণে উৎপাদন ও মজুত থাকার পরও মোকাম হিসেবে খ্যাত নওগাঁ, নাটোর ও কুষ্টিয়া থেকে রাজধানীতে চাল আসছে না। এতে করে রাজধানীর বাজারগুলোয় চাল সরবরাহে সমস্যা তৈরি হয়েছে।

জানা গেছে, দেশের উত্তরাঞ্চলে এবার সবজি উৎপাদন হয়েছে প্রচুর। করোনার প্রভাবে সবকিছুর সঙ্গে বন্ধ হয়ে গেছে রাজধানীতে সবজি আসাও। এতে একদিকে কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন, অপরদিকে সবজি সরবরাহে সমস্যা তৈরি হচ্ছে। ফলে বাড়ছে দাম। এভাবে চলতে থাকলে দাম দিয়েও প্রয়োজনীয় সবজি পাওয়া কঠিন হয়ে পড়বে। ইতোমধ্যে নিম্ন আয়ের মানুষ ও  শ্রমিকরা কাজ হারিয়েছেন। এ অবস্থায় যদি নিত্যপণ্যের সরবরাহ ব্যাহত হয়, দাম বাড়ে তাহলে এই শ্রেণির মানুষদের দিন পার করাই কঠিন হবে।

পোল্ট্রি খামারিরা বলছেন, ব্রয়লার মুরগি বিক্রির জন্য পাইকার বা ক্রেতা পাচ্ছেন না তারা। একই অবস্থা ডেইরি খাতেরও।

পরিবহন সংকটের বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ পরিবহন শ্রমিক লীগের সভাপতি হানিফ খোকন বলেন, বিআরটিসির অনেক ট্রাক রয়েছে। এসব ট্রাক রাস্তায় নামানো গেলে জরুরি প্রয়োজনের পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে সৃষ্ট জটিলতা নিরসন অনেকটাই সম্ভব। বিষয়টি ভেবে দেখা যেতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap