নেইমার একটা ভাঁড়!

জাতীয় দলের হয়ে দারুণ সময় পার করেছেন ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার জুনিয়র। বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের দুই ম্যাচেই জয় পেয়েছে তার দল। এছাড়া দারুণ ছন্দে রয়েছেন নেইমারও। শেশ ম্যাচে হ্যাটট্রিক করে গড়েছেন ইতিহাস। কিংবদন্তি রোনালদোকে টপকে হয়েছেন ব্রাজিলের দ্বিতীয় সেরা গোল সংগ্রাহক।

এমন অর্জনে পুরো ফুটবল দুনিয়ায় প্রশংসায় ভাসাচ্ছে নেইমারকে। এমন সুসময়ে পেরুর ডিফেন্ডার কালোর্স জামব্রানো নেইমারকে ধুয়ে দিলেন। পেরুর এ ফুটবলারের কথায়, নেইমার দারুণ খেলোয়াড়, কিন্তু একজন সত্যিকারের ভাঁড়।

একদিন আগেই বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের ম্যাচে ব্রাজিলের কাছে ৪-২ গোলে হেরেছে পেরু। ব্রাজিলের চার গোলের তিনটিই করেছেন নেইমার। ম্যাচটিতে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছেড়েছিলেন পেরুর কার্লোস কাসেদা ও জামব্রানো। ব্রাজিলের স্ট্রাইকার রিচার্লিসনকে কনুই দিয়ে ধাক্কা মেরে এই শাস্তি পেয়েছেন জামব্রানো। মাঠে নেইমারদের কিছু না বলতে পারলেও এক অনুষ্ঠানে নেইমারকে ধুয়ে দিলেন পেরুর এই ডিফেন্ডার।

গোল ডটকমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, আমেরিকান টিভি অনুষ্ঠান ‘লা বান্দা দেল চিনো’-তে জামব্রানো বলেন, ‘সত্যি কথা বলতে নেইমার দারুণ ফুটবলার। বিশ্বের অন্যতম ফুটবলার। কিন্তু আমার কাছে সে একজন সত্যিকারের ভাঁড়।’

এখানেই থেমে থাকেননি জামব্রানো। পেনাল্টি থেকে নেইমারের গোল করার প্রসঙ্গ টেনে পেরুর ডিফেন্ডার বলেন, ‘মাঠে নিচের খেলা নিয়ে সে ভালোভাবে অবগত। কিন্তু সেইসঙ্গে ফাউলের খোঁজেও থাকে সে। পেনাল্টি পাওয়ার জন্য সে ডি-বক্সে ইচ্ছে করে বারবারই পড়ে যায়। শেষ পর্যন্ত দুটি পেনাল্টিতে নিজের লক্ষ্য (গোল) পূরণ করেছে সে। কিন্তু সেগুলো সত্যিকারভাবে পেনাল্টি ছিল না।’

ব্রাজিলের খেলোয়াড় বলেই ম্যাচ অফিসিয়ালরা নেইমারকে সাহায্য করেছেন বলে মনে করেন জামব্রানো, ‘এটা ব্রাজিল, তাই অফিসিয়ালরা বারবার ভিএআরের সাহায্য নেন। খেলা ইতিবাচক কিংবা নেতিবাচক যাই হোক না কেন, অফিসিয়ালরা ফুটেজগুলো পর্যলোচনা করেছেন, কারণ এটা ব্রাজিল।’

তবে জামব্রানো যাই বলুক না কেন, নিজ দেশের কিংবদন্তিদের কাছে বেশ প্রশংসিত নেইমার। নেইমারের কীর্তিতে তো বেশ খুশিই হয়েছেন নিজের রেকর্ড হারানো রোনালদো নাজারিও। এ প্রজন্মের সুপারস্টারকে আরো অনেক দূর এগিয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণা দিয়েছেন তিনি। ভালোবাসা জানিয়ে লিখেছেন, ‘আকাশই তোমার সীমানা, উড়তে থাকো বাচ্চা।’

ব্রাজিলের জার্সিতে ১০৩ ম্যাচ খেলে ৬৪টি গোল করেছেন নেইমার। তৃতীয় স্থানে নেমে যাওয়া রোনালদোর গোলসংখ্যা ৯৮ ম্যাচে ৬২টি। অন্যদিকে সর্বাধিক ৭৭টি গোল করে এ তালিকায় শীর্ষে আছেন কিংবদন্তি ফুটবলার পেলে। মাত্র ২৮ বছর বয়সী নেইমার দারুণ ছন্দে আছেন। অচিরেই হয়তো পেলেকেও ছাড়িয়ে যাবেন এ সময়ের অন্যতম সেরা ফরোয়ার্ড।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap