ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় গ্রাম আদালতের বিকল্প নেই : স্থানীয় সরকারমন্ত্রী

দেশে আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করতে হলে গ্রাম আদালত কার্যকর এবং শক্তিশালী করার কোনো বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

গ্রাম আদালত শক্তিশালী করতে পারলে জেলা পর্যায়ের আদালতগুলোতে মামলার সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে কমবে বলেও উল্লেখ করে মন্ত্রী।

রবিবার (২৮ নভেম্বর) রাজধানীর একটি হোটেলে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ইউএনডিপির সহায়তায় স্থানীয় সরকার বিভাগ আয়োজিত গ্রাম আদালতের আইনগত কাঠামো সংস্কার বিষয়ক জাতীয় পর্যায়ের পরামর্শ সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

মন্ত্রী বলেন, গ্রামাঞ্চলে অনেক ছোট ছোট ও খুব সামান্য বিষয় নিয়ে মানুষ নানারকম বিবাদে জড়িয়ে পড়েন। স্থানীয়ভাবে এসব বিবাদ মীমাংসা করতে না পারায় তারা কোর্টে যান। এতে একদিকে যেমন আদালতে মামলার জট তৈরি হয়, অন্যদিকে ভুক্তভোগীদের সময় ও অর্থের অপচয় হওয়ার পাশাপাশি তাদের রায় পেতে অনেক দেরি হয়। এছাড়া এক ধরনের অসাধু ব্যক্তি বিবাদ মীমাংসা করে দেওয়ার নামে উভয়পক্ষের কাছ থেকে টাকা-পয়সা আদায় করেন।

গ্রামীণ মানুষের মধ্যে দ্রুত ন্যায়বিচার নিশ্চিত করায় বর্তমানে গ্রাম আদালতের জনপ্রিয়তা বেড়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, গ্রাম আদালত পরিচালন প্রক্রিয়া সহজতর করতে এর আইন আরো যুগোপযোগী করতে হবে।

‘সারাবিশ্বে সময়, পরিস্থিতি ও মানুষের কল্যাণের কথা বিবেচনা করে আইনের পরিবর্তন করা হয়। গ্রাম আদালত আইনের পাশাপাশি স্থানীয় সরকার বিভাগের অধীনে অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর আইন যুগোপযোগী করার জন্য সরকার কাজ করছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার সব টার্গেট পূরণ করতে বাংলাদেশ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। শহর ও গ্রামের মানুষের মধ্যে বৈষম্য নিরসনে সরকার কাজ করছে। ’

প্রধান অতিথি এসময় গ্রাম আদালত সক্রিয় করার কার্যক্রম পরিচালনায় একদশক জুড়ে নিরবচ্ছিন্নভাবে সরকারের পাশে থাকায় ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ইউএনডিপির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

সভাপতির বক্তব্যে স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভিন্ন সময়ে গ্রাম আদালত কার্যক্রমের প্রয়োজনের উপর গুরুত্ব দিয়ে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দিয়েছেন। গ্রাম আদালতের মাধ্যমে ন্যায়বিচার প্রক্রিয়ায় নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা সম্ভব হয়েছে।

ইউএনডিপি বাংলাদেশের আবাসিক প্রতিনিধি সুদীপ্ত মুখার্জি, ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত রেন্সজে তেরিংক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বাংলাদেশ গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ প্রকল্পের জাতীয় প্রকল্প পরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব মরণ কুমার চক্রবর্তী, স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মুস্তাকিম বিল্লাহ ফারুকী, প্রকল্প এলাকা হতে আসা জেলা প্রশাসকরা উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী জানান, অনুষ্ঠানে উন্মুক্ত আলোচনার মাধ্যমে গ্রাম আদালতের আইনি কাঠামো সংশোধনের যেসব প্রস্তাবনা আসবে সেগুলো সন্নিবেশিত করে সংশ্লিষ্ট সবার মতামত নিয়ে আইন তৈরি করলে গ্রাম পর্যায়ে স্থানীয় বিচার ব্যবস্থা আরও শক্তিশালী হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap