মানবপাচারকারীদের ধরতে রেড অ্যালার্ট জারি করবে সিআইডি

লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যার ঘটনায় বিদেশে পলাতক মানবপাচারকারী চক্রকে ধরতে ইন্টারপোলের সহযোগিতা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) ডিআইজি (অর্গানাইজড ক্রাইম) ইমতিয়াজ আহমেদ।

তিনি বলেছেন, ‘সিআইডি মানবপাচারকারী চক্রকে ধরতে তদন্তের পাশাপাশি অভিযান পরিচালনা করছে। বিদেশে পলাতক মানবপাচারকারীদের ধরতে প্রয়োজনবোধে ইন্টারপোলের মাধ্যমে রেড নোটিশ জারি করা হবে। পাশাপাশি মানবপাচারকারী চক্রের সক্রিয় প্রত্যেকের অর্থ-সম্পদের খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে।’ তাদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং মামলার প্রস্তুতির কথাও জানান ইমতিয়াজ আহমেদ।

বৃহস্পতিবার (৪ জুন) দুপুরে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত ২৮ মে লিবিয়ার মিজদাহ শহরে মানবপাচারের শিকার ২৬ বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় আহত হয় আরও ১১ বাংলাদেশি।

এ ঘটনায় শুধু বাংলাদেশ নয়, আলোড়িত করেছে পুরো বিশ্বকে। হত্যাকাণ্ডের পর তদন্ত ও অভিযানে নামে বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

বুধবার (৩ জুন) গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর থেকে সেন্টু শিকদার ও নার্গিস আক্তার নামে দুই মানবপাচারকারীকে গ্রেফতার করে পুলিশের এলিট ফোর্স র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন‌‌ (র‍্যাব)। লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিকে নৃশংসভাবে হত্যার ঘটনায় এখন পর্যন্ত মোট ১৫ জনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব ও সিআইডি।

সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম ডিআইজি ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, ‘লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি হত্যার ঘটনায় সারা বাংলাদেশে মামলা হয়েছে ৯টি। ওইসব মামলায় এখন বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার হলেও বেশিরভাগ মানবপাচারকারী পলাতক রয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘দেশীয় মানবপাচারকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে অপরাধ তদন্ত বিভাগ। কিন্তু এসব মানবপাচারকারী চক্রের অধিকাংশই রয়েছেন পলাতক অর্থাৎ দেশের বাইরে। তারা দেশের বাইরে থেকে এ দেশে দালালের মাধ্যমে মানবপাচারের মতো ঘৃণ্য কাজটি চালিয়ে আসছেন।’

ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, ‘পল্টনে সিআইডি থেকে দায়ের করা মামলার পাশাপাশি অন্যান্য মামলাও সিআইডি ছায়া তদন্ত করছে। তদন্তে মানবপাচারকারী হিসেবে যাদের তথ্য উপাত্ত ও নাম উঠে আসছে তাদের বিরুদ্ধে আমরা মামলার দ্রুত চার্জশিট আদালতে দাখিল করব। এছাড়া তাদের বিরুদ্ধে আদালতের মাধ্যমে ওয়ারেন্ট জারির পর ইন্টারপোলের মাধ্যমে রেড নোটিশ জারি করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘নিরীহ মানুষের জীবনের বিনিময় যে অর্থ-সম্পদ তারা করেছেন, এই সম্পদ তারা ভোগ করতে পারবেন না। তাদের বিরুদ্ধে আমরা মানি লন্ডারিং আইনে মামলা করব। ইতিমধ্যে এ বিষয়ে কাজ শুরু করেছে সিআইডি। বড় বড় যত সংঘবদ্ধ মানবপাচারকারী রয়েছে ইতিমধ্যে তাদের নাম আমরা সংগ্রহ ও ইনকোয়ারি শুরু করেছি। দেশি কিংবা বিদেশি যত প্রভাবশালী মানবপাচারকারী হোক না কেন তাদের রাজনৈতিক পরিচয় বিবেচনা করা হবে না। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap