সব সংগ্রামেই ছাত্রলীগের অগ্রণী ভূমিকা ছিলো: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের সব আন্দোলন-সংগ্রামে ছাত্রলীগের অগ্রণী ভূমিকা ছিলো। ১৫৮ সালে মার্শাল ল দেয়া হলো। তখন রাজনীতি নিষিদ্ধ ছিলো। বঙ্গবন্ধু কারাগারে থেকেই চিন্তা করলেন এ থেকে পরিত্রাণ পেতে হবে। তিনি ৬০ সালে মুক্তি পান। কিন্তু সব নিষিদ্ধ ছিলো।
|আরো খবর

ছাত্রলীগকে ‘মুরব্বি সংগঠন’ বললেন শেখ হাসিনা
‘জয় বাংলা স্লোগান ছড়িয়ে দিয়েছিল ছাত্রলীগ’
ছাত্রলীগের পূর্ণ দায়িত্বে জয়-লেখক

তিনি তখন থেকে ছাত্রলীগকে সংগঠিত করেন। সারা দেশে নিউক্লিয়াস সেল করে মানুষের মাঝে উদ্দিপনা জাগানোর চেষ্টা করেছিলেন।

শনিবার ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান উদ্বোধনের পর প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। দুপুর আড়াইটার দিকে রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ অনুষ্ঠানে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও সংগ্রামে বলিষ্ঠ নেতৃত্ব দানকারী ঐতিহ্যবাহী ছাত্রসংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ। বাংলা, বাঙালির স্বাধিকার অর্জনের লক্ষ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশনায় ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জন্ম হয়।

উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ ও প্রচীন ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গৌরব, ঐতিহ্য, সংগ্রাম ও সাফল্যের ৭২তম বার্ষিকী উপলক্ষে সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »
Share via
Copy link
Powered by Social Snap